কলেজ পরিচিতি

বাংলাদেশ নৌ বাহিনী কলেজ ঢাকা, নাবিক কলোনীর অভ্যন্তরে একটি সুশৃঙ্খল ও মনোরম পরিবেশে অবস্থিত। ১৯৯৬ সালে এ কলেজটির যাত্রা শুরু হয়। বর্তমানে এই প্রতিষ্ঠানের সম্মানিত অধ্যক্ষ, এম নিয়ামুল হাসান, ক্যাপ্টেন, বিএন, যিনি তাঁর অসাধারন দক্ষতা ও মেধার সমন্বয় ঘটিয়ে অভিজ্ঞ শিক্ষক মন্ডলী দ্বারা যর্থাথ পরিচালনার মাধ্যমে কলেজটির উত্তরোত্তর উন্নতির দিকে এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছেন।

কলেজ কার্যক্রমঃ

১. কলেজের ক্লাস শুরু হয় সকাল ৮:১৫ তে এবং শেষ হয় দুপুর ১:৩৫ মিনিটে।

২. বিজ্ঞান বিভাগে ৪টি, ব্যবসায় শিক্ষা বিভাগে ৩টি ও মানবিক শাখায় ১টি সেকশন রয়েছে।

৩. প্রতিটি শ্রেণিকক্ষে রয়েছে পর্যাপ্ত আলো, মুক্ত বাতাস ও উন্নত সাউন্ড সিস্টেম এর ব্যবস্থা রয়েছে।

৪. প্রতিটি শ্রেণিকক্ষে সিসি ক্যামেরা সংযুক্ত রয়েছে।

৫. এখানে প্রতিটি শিক্ষকের তত্ত্বাবধানে ২৫জন ছাত্র/ছাত্রীর একটি গাইড ব্যবস্থা রয়েছে যিনি ছাত্র/ছাত্রীদের কলেজে অবস্থানকালে সার্বিক শৃঙ্খলা, পরীক্ষাল ফলাফল পর্যবেক্ষণ করেন এবং অভিভাবকের সাথে যোগাযোগ করেন। প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহন করেন।

৬. সপ্তাহে দুদিন ৩০ নম্বরের কুইজ পরীক্ষা নেয়ার ব্যবস্থা রয়েছে। যার সময়সীমা হলো ৬০মিনিট। এর ফলে ছাত্র/ছাত্রীদের লেখাপড়ার মধ্যে গতিশীলতা বজায় থাকে।

৭. এ কলেজে সহশিক্ষা কার্যক্রম যেমন: সাহিত্য ও সাংস্কৃতিক সংঘ, বিজ্ঞান ক্লাব, রোভার ও বিএনসিসি, আইটি ক্লাব বিএনসিডি ফটোগ্রাফিক সোসাইটি ক্লাব চালু রয়েছে।

৮. এ কলেজে বিজ্ঞান বিভাগ হতে এস এস সি ও এইচ এস সি তে প্রাপ্ত জিপিএ-৫ এর ছাত্র/ছাত্রীবৃন্দ সরাসরি নৌ-বাহিনীতে আইএসএসবি তে অংশ গ্রহন করতে পারবে। অন্যদিকে এ দুটি পরীক্ষায় ন্যূনতম ৪ জিপিএ প্রাপ্ত শিক্ষার্থী অধ্যক্ষ্যের নেতৃত্বে একটি ভাইভা বোর্ডের এর সুপারিশক্রমে একই সুযোগ পেতে পারে।

৯. এ কলেজের দক্ষ ও যোগ্য শিক্ষকবৃন্দের নিরলস পরিশ্রমের ফলশ্রুতিতে প্রতি বছর অনেক ছাত্র/ছাত্রী যারা এসএসসি তে জিপিএ-৫ পেতে ব্যর্থ হয়েছে তারা এইচ এস সি পরীক্ষায় জিপিএ-৫ পাওয়ার সৌভাগ্য অর্জন করছে।

১০. বিভিন্ন রুটে রয়েছে কলেজের নিজস্ব বাস।

বাসের ভাড়া ও রুট সমূহ জানতে ক্লিক করুন। এখানে … বিএন কলেজ ট্রান্সপোর্ট সার্ভিস

 

১১. ছাত্র/ছাত্রীদের উপস্থিতি নিশ্চিত করার লক্ষ্যে অভিভাবকবৃন্দের নিকট নিয়মিত এসএমএস প্রেরনের ব্যবস্থা রয়েছে।

১২. আমাদের রয়েছে ক্লাস টিউনের সর্বাধুনিক সফটওয়্যার প্রযুক্তি যার মাধ্যমে বিষয় শিক্ষক ক্লাসে গিয়ে সঙ্গে সঙ্গেই ছাত্র/ছাত্রীদের উপস্থিতি/অনুপস্থিতি নিশ্চিত করে অনলাইনের মাধ্যমে তা প্রেরন করতে পারবেন এবং অভিভাবকবৃন্দ তাৎক্ষণিক ম্যাসেজ পেয়ে যাবেন।

১৩. ছাত্র/ছাত্রীদের মাসিক বেতন পরিশোধের রয়েছে সহজ ব্যবস্থা। অর্থাৎ বিকাশের মাধ্যমে বেতন পরিশোধ করতে পারবেন।

১৪. যে সকল ছাত্র/ছাত্রীরা কো কারিকুলার কিংবা এক্সট্রা কারিকুলার কর্মকান্ডে বিশেষ পারদর্শি যেমন: গান, নৃত্য কিংবা খেলাধূলা ইত্যাদি ক্ষেত্রে সে সকল ছাত্র/ছাত্রী বিশেষ কোটায় আবেদন করতে পারবে।